হোটেলে তিলক পরতে সরাসরি অস্বীকার! অস্ট্রেলিয়া সিরিজ শুরুর আগেই বড় বিতর্কে উমরান-সিরাজ

একসপ্তাহও বাকি নেই। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে নাগপুর টেস্টে খেলতে নামছে টিম ইন্ডিয়া। এমন অবস্থায় বেনজির বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন মহম্মদ সিরাজ এবং উমরান মালিক। নাগপুরে প্ৰথম টেস্টে খেলতে নামছে ভারত।

সেই ম্যাচের জন্য টিম ইন্ডিয়া ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছে নাগপুরে। তবে হোটেলে পৌঁছেই বিতর্কের মুখোমুখি টিম ইন্ডিয়া। হোটেলে অতিথিদের অভ্যর্থনা জানানোর জন্য তিলক পরিয়ে বরণ করে নেওয়া সনাতনী রীতি। তবে মহম্মদ সিরাজ, উমরান মালিক তিলক নিতে অস্বীকার করেন। তারপরই বিতর্ক দানা বেঁধেছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় জনৈক নেটিজেন তিলক পর্বের ভিডিও পোস্ট করেন। তারপরেই সেই ভিডিও ভাইরাল। হাজারো হাজারো কমেন্টে পক্ষে-বিতর্কে মত জমা হয়েছে। হাজার হাজার লাইকের স্রোতে এই ঘটনা রীতিমত এখন ট্রেন্ডিং।

নেটিজেনদের একাংশ যেমন দেশের ঐতিহ্যকে অপমান করার জন্য দুই ক্রিকেটারকে কাঠগড়ায় তুলেছেন, অনেকেই আবার তাঁদের পাশেও দাঁড়িয়েছেন।

তাঁদের সপক্ষে যুক্তি দিতে গিয়ে অনেকে বলেছেন, এটা তাঁদের ব্যক্তিগত ইচ্ছে-নিচ্ছে। নিজেদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার যাবতীয় অধিকার ওঁদের রয়েছে। ঘটনা হল, বিতর্ক তাতে মোটেই কমছে না। আরও মাথাচাড়া দিচ্ছে।

ঘটনাচক্রে উমরান হোটেলে নেতিবাচক কাণ্ডে শিরোনামে আসার দিনেই পাকিস্তানের তরফে তীব্র অসম্মানিত হয়েছেন কাশ্মীরি স্পিডস্টার। বিতর্কের সূত্রপাত এক পডকাস্ট থেকে।

পাকিস্তানের প্রাক্তন তারকা সোহেল খান দ্য নাদির আলি পডকাস্টে বলে দিয়েছেন, ‘বোলিং মেশিন ছাড়া কেউই শোয়েব আখতারের রেকর্ড ভাঙতে পারবে না। কোনও মানুষের পক্ষে এই কীর্তি করা সম্ভব নয়। উমরান মালিক নিঃসন্দেহে ভালো বোলার। ওঁর দু-একটা ম্যাচে বোলিং দেখেছি। খুব দ্রুত রান আপ। সবকিছুই ভালো। তবে যদি ১৫০+ বোলারদের বিষয় বিবেচ্য হয়, আমি এখনই পাকিস্তানের ঘরোয়া স্তরে টেপ বলে কমপক্ষে ১০-১২ জনের নাম বলতে পারি, যারা দেড়শ প্লাস স্পিডে বল করে। লাহোর কালান্ডার্স-এর ট্রায়ালে গেলেই অনেক এরকম বোলার দেখা যাবে।’

তিনি আরও বলেছেন, ‘উমরানের মত বোলার এখানে অনেক রয়েছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে এরকম বোলার ভর্তি। ঘরোয়া ক্রিকেট স্তর অতিক্রম করে যখন কোনও বোলার জাতীয় দলে সুযোগ পায়, তখন সে সেরা বোলার হিসাবেই নিজেকে প্রমাণ করে আন্তর্জাতিক স্তরে খেলতে নামে। শাহিন আফ্রিদি, নাসিম শাহ, হ্যারিস রউফ- নিজেদের দক্ষতা প্রমাণ করেছে। এরকম অনেক নাম বলতে পারি।’

CategoriesUncategorized

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *