মাধ্যাকর্ষণ বোমা বহনে সক্ষম ইসরায়েলের ড্রোন

ফলে ড্রোনের মাধ্যমে বহন করতে পারা এই বোমা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আগে থেকে চিহ্নিত করাও সম্ভব হয় না৷

আনম্যানড এরিয়াল ভেহিকলকে (ইউএভি) সাধারণভাবে ড্রোন বলে উল্লেখ করা হয়৷ মানববিহীন এই উড়োযানের সবশেষ ইসরায়েলি মডেলটি প্রায় এক টন পর্যন্ত বোমা বহনে সক্ষম বলে জানা গেছে৷

দুই দশক চরম গোপনীয়তার মধ্যে পরীক্ষানীরিক্ষার পর গত জুলাইয়ে ইসরায়েল প্রথমবারের মতো এই ড্রোনের তথ্য জনসম্মুখে প্রকাশ করে৷

নভেম্বরে ইসরায়েলের এক জেনারেল এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানান৷ তিনি জানান যে, এই ড্রোন পরিচালনায় বিমানবাহিনীর সঙ্গে গোলন্দাজ বাহিনীও কাজ করে৷ পার্শ্ববর্তী ফিলিস্তিন অঞ্চলের পাশাপাশি দূরের ইরান, এমনকি আফ্রিকার সুদান পর্যন্ত বোমা বহন করে নিয়ে যেতে সক্ষম এই ড্রোন৷

এই ড্রোন দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয় এবং বোমা ফেলা ছাড়াও নজরদারির জন্য আকাশ থেকে নিচের ভিডিও গ্রহণ করে প্রেরণ করতেও সক্ষম এই ড্রোন৷

বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে ইসরায়েলের এক জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দেশটির সশস্ত্র ড্রোন বহরে যাত্রীবাহী বিমানের আকারের হিরন টিপি নামে এক ধরনের ড্রোন রয়েছে৷ এই ড্রোনের মালিক রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ইসরায়েল এরোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড এর৷ এছাড়া এলবিট সিস্টেমস লিমিটেডের অপেক্ষাকৃত ছোট আকারের হারমিসও রয়েছে এই বহরে৷

এই কর্মকর্তা আরো জানিয়েছেন, হিরন টিপি ইসরায়েল সেনাবাহিনীর কাছে থাকা সবচেয়ে ভারি ড্রোন এবং প্রায় এক টনের কাছাকাছি গোলাবারুদ বহনে সক্ষম৷

রয়্যাল ইউনাইটেড সার্ভিসেস ইনস্টিটিউট এর তথ্যমতে, মধ্যপ্রাচ্যে সবচেয়ে বড় ড্রোন বহর পরিচালনাকারী দেশে পরিণত হয়েছে ইসরায়েল৷

রয়টার্সকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ইসরায়েলি সামরিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এই ড্রোনগুলো সরকারের সঙ্গে সরকারের চুক্তির মাধ্যমে বিক্রি করা হবে৷ ফলে এর তথ্য জনসম্মুখে প্রকাশের প্রয়োজন পড়বে না৷

এই ড্রোনে বহনকারী বোমা, ‘মাধ্যাকর্ষণের টানে নীচে পড়বে এবং এর গতি শব্দের বেগ পর্যন্ত পৌঁছানোর ক্ষমতা রাখে’৷

অ্যামেরিকার ড্রোন থেকে নিক্ষেপ করা হেলফায়ার মিসাইল ব্যবস্থার মতো এই বোমা থেকে শব্দ বা জ্বালানির ধোঁয়া নির্গত হয় না৷ এর ফলে এর শব্দ বা ধোঁয়া দেখে আগে থেকে কেউ ড্রোন আক্রমণ সম্পর্কে ধারণা করে উঠতে পারবে না৷

এডিকে/আরআর (রয়টার্স)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *